উপজেলার পটভূমি : ১৯৮৩ সালে তারাগঞ্জ উপজেলা গঠিত হয়। উপজেলাটি রংপুর জেলা শহর হতে ২৬ কি.মি. পশ্চিমে অবস্থিত। পূর্বে তারাগঞ্জ উপজেলা বদরগঞ্জ উপজেলার অন্তর্ভূক্ত ছিল। কথিত আছে যে, বহুদিন আগে তারা বিবি নামে একজন পূন্যবতী মহিলা এখানে বাস করতেন। তারাগঞ্জ হাটের পার্শ্বেই তাঁর মাজার বিদ্যমান। এ মাজারকে কেন্দ্র করে এখানে একটি বাজার গড়ে উঠে। পরবর্তীকালে উক্ত তারা বিবির নামানুসারে স্থানটির নাম হয় তারাগঞ্জ। জনশ্রূতি ছাড়া তারাগঞ্জ উপজেলার নামের সমর্থনে কোন ঐতিহাসিক তথ্য সম্বলিত দলিল দস্তাবেজ পাওয়া যায়নি। তারাগঞ্জ উপজেলায় কলেজ ০৬টি, মাধ্যমিক বিদ্যালয় ১৪ টি, মাদ্রাসা ১২ টি, প্রাথমিক বিদ্যালয় ৭১ টি রয়েছে।

তারাগঞ্জ উপজেলার আয়তন-১২৮.৬৪ বর্গ কি:মি:। উত্তরে-নীলফামারী জেলার কিশোরগঞ্জ উপজেলা, দক্ষিণে-রংপুর জেলার বদরগঞ্জ উপজেলা, পূর্বে-রংপুর সদর উপজেলা এবং পশ্চিমে-নীলফামারী জেলার সৈয়দপুর উপজেলা অবস্থিত।

তারাগঞ্জ উপজেলা এক নজরে : আয়তন-১২৮.৬৪ বর্গ কি:মি:, জনসংখ্যা-পুরুষ-৭১,৮৪৩জন, মহিলা-৬৯,২৮০জন, মোট-১,৪০,৮৩৩জন, মোট মৌজা-৪২টি, সরকারী হাসপাতাল-১টি, ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্র-৫টি, পোষ্ট-১টি, নদী-নালা-৪টি, হাট-বাজার-১৫টি, ব্যাংক-৬টি, ইউনিয়ন-৫টি, কলেজ-৮টি, মাধ্যমিক বিদ্যালয়-১২টি, মাদ্রাসা-১১টি, নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়-৪টি, সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়-৩৯টি, রেজি: প্রাথমিক বিদ্যালয়-৩৫টি

ইউনিয়ন সমূহ : ১  নং আলমপুর, ২ নং কুর্শা, ৩ নং ইকরচালী, ৪ নং হাড়িয়ারকুটি ও ৫ নং  সয়ার.
 

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।